পৃথিবী যত এগিয়ে যাচ্ছে, মানুষ তত ব্যস্ত হয়ে পড়ছে। মানুষের হাতে এখন সময় খুবই কম। এক সময় ক্রিকেট বিশ্বে শুধুমাত্র পাঁচ দিনের টেস্ট ফরম্যাট ছিল। তার সাথে যোগ হয় একদিনের ক্রিকেট। কিন্তু সারাদিন টিভির সামনে বসে ক্রিকেট ম্যাচ দেখবে, এমন মানুষ এখন নেই বললেই চলে।

সে কারণে ক্রিকেটকে আরো ছোট পরিসরে নিয়ে আসার জন্য চালু করা হয় টি টোয়েন্টি ক্রিকেট। কিন্তু তা দেখারও যেন সময় হয় না অনেকের। সে কারণে ক্রিকেট বিশ্বে সর্বশেষ সংযোজিত হয়েছে ১০ ওভারের টি টেন ক্রিকেট ফরম্যাট।

টি টেন ক্রিকেট ম্যাচের দৃশ্য; Source: dnd.com.pk

আরব আমিরাতের ক্রিকেট বোর্ডের আয়োজনে এবার বসেছিল টি টেন ক্রিকেটের দ্বিতীয় আসর। সদ্য সমাপ্ত এই আসরের ফাইনালে শহীদ আফ্রিদির পাখতুনকে ২২ রানে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে নর্দান ওয়ারিয়র্স।

টি টেন ক্রিকেট চালু হওয়ার পর থেকে ব্যাটসম্যানদের আধিপত্য আরো বেড়ে যাবে, সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। তবে ক্রিকেটের নতুন ফরম্যাটটি ক্রিকেটকে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দিতেও সাহায্য করবে। এবার চলুন সদ্য সমাপ্ত হওয়া টি টেন ক্রিকেটের দ্বিতীয় আসরের ৫টি বিষয় সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

টি টেন শুধুমাত্র তরুণ ক্রিকেটারদের খেলা নয়

আধুনিক যুগের মানুষ খেলাধুলা থেকে বিনোদন পাওয়ার জন্য যতটুকু সময় ব্যয় করতে আগ্রহী, টি টেন ক্রিকেটের একটি ম্যাচ হতে ঠিক ততটুকুই সময় লাগে। ক্রিকেটের অন্য তিনটি ফরম্যাটের চেয়ে টি টেন অনেক বেশি দ্রুতগতির এবং অনেক বেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। সে কারণে অনেকে ভাবতে পারেন, এই ফরম্যাটটি হয়তো শুধুমাত্র তরুণ ক্রিকেটারদের জন্য। কিন্তু বিষয়টি পুরোপুরি ঠিক নয়। কারণ টি টেনের এবার আসর দেখিয়ে দিয়েছে, যতই হার্ডহিটার ব্যাটসম্যানদের খেলা হোক না কেন, টি টেনে সাফল্য পেতে হলে অভিজ্ঞতা বড় একটি নিয়ামক।

প্রবীন তাম্বে; Source: thenational.ae

টি টেন ক্রিকেটে ম্যাচের মোড় যে কোনো সময়ে ঘুরে যেতে পারে। সে কারণে দলকে সঠিক লক্ষ্যের দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রয়োজন বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন এবং পরিপক্ক মাথার ক্রিকেটার। যেমন, এবারের আসরে সেরা বোলিং করেছেন ভারতের ৪৭ বছর বয়সী লেগ স্পিনার প্রবীণ তাম্বে। তিনি মাত্র ১৫ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিয়েছেন, যেটা অন্য কোনো তরুণ বোলার করতে পারেননি। ব্যাটিংয়ে আগুন ঝরানো মোহাম্মদ শেহজাদের বয়সও ত্রিশের কোটায়। ফলে বোঝাই যাচ্ছে, শুধুমাত্র তারুণ্য দিয়ে টি টেনে বাজিমাত করা সম্ভব নয়। এই ফরম্যাটে সাফল্য পেতে হলে অভিজ্ঞাতারও প্রয়োজন রয়েছে।

টি টেনে খুব দ্রুত  সেঞ্চুরির দেখা মিলবে

মাত্র ১০ ওভারের খেলা, সেখানেই ১৮০ এর বেশি রান হয়েছে বেশ কয়েকবার। আফগানিস্তানের হার্ডহিটার ওপেনার মোহাম্মদ শেহজাদ মাত্র ১৬ বল খেলে ৭৪ রানের এক টর্নেডো ইনিংস খেলেছেন। যদি তার বিপক্ষ দল প্রথমে ব্যাট করে আরো কিছু রান করতে পারতো, তাহলে সম্ভবত সেদিনই টি টেনে প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পাওয়া যেতো।

মোহাম্মদ শেহজাদ; Source: hindustantimes.com

তবে টি টেন ফরম্যাটে সেঞ্চুরি দেখার জন্য খুব বেশিদিন অপেক্ষাও করতে হবে না। আরব আমিরাতে এবারের আসরে ৮০ রানের বেশি ইনিংস এসেছে মোট তিনটি। এ থেকে বোঝা যায়, টি টেন ক্রিকেটে সেঞ্চুরি করা খুব কঠিন কাজ নয়। টি টেনের আগামী আসরে কোনো ব্যাটসম্যান যদি সেঞ্চুরি করে ফেলেন, তাহলে এতে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।

আরব আমিরাতের খেলোয়াড়দের সুযোগ না দেওয়া

আরব আমিরাত ক্রিকেট বোর্ডের টি টেন ক্রিকেট লিগ চালু করার অন্যতম উদ্দেশ্য হচ্ছে, দেশটিতে ক্রিকেটকে জনপ্রিয় করে তোলা এবং তাদের দেশীয় ক্রিকেটারদেরকে তুলে আনা। তারা এ ধরনের টুর্নামেন্ট আয়োজন করে নতুন নতুন খেলোয়াড় তৈরির মাধ্যমে নিজেদের দলকে শক্তিশালী করতে চাচ্ছেন।

আরব আমিরাতের ক্রিকেটার; Source: india.com

এ কারণেই আরব আমিরাতের ক্রিকেট কর্তাব্যক্তিরা টি টেনের প্রত্যেক দলের দুইজন করে স্থানীয় ক্রিকেটার রাখা বাধ্যতামূলক করেন এবং প্রতিটি ম্যাচের একাদশে একজন করে আমিরাতের খেলোয়াড় খেলানোর নিয়ম বেঁধে দেন।

কিন্তু প্রতিটি দলের অধিনায়কেরা বিভিন্ন উপায়ে এই একজন খেলোয়াড়কে আড়াল করে রেখেছেন। বলতে গেলে তারা শুধুমাত্র ফিল্ডিং করেছেন, বল ব্যাট হাতে নেয়ার তেমন সুযোগই পাননি। তবে এভাবে চলতে থাকলে স্থানীয় ক্রিকেটারদের কোনো লাভ হবে না। তাই আমিরাতের খেলোয়াড়দের বেশি বেশি খেলার সুযোগ দেয়া প্রয়োজন।  নয়তো তারা বর্তমানে যে অবস্থানে রয়েছেন, সে অবস্থানেই থেকে যাবেন।

জিততে হলে কত রান করা দরকার

টি টেন ক্রিকেটে প্রথমে ব্যাট করে জয় পাওয়া যেন একেবারে দুঃসাধ্য। এবারের আসরের ২৯ ম্যাচের মধ্যে ৮ ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করা দল জয় পেয়েছে। তাহলে জিততে হলে প্রথমে ব্যাট করে কত রান করা উচিত?

টি টেনে রানের বন্যা বয়ে গেছে; Source: tribune.com.pk

টি টেনে এবারের আসরে যে আটটি ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে জয় পেয়েছে, সেসব ম্যাচের বিজয়ী দলগুলোর রানের গড় ১৩৪। কিন্তু অনেক ম্যাচে দেখা গেছে, ১৩৫ থেকে ১৪০ রান করেও হারতে হয়েছে। ফলে এই রান খুব বেশি নিরাপদ নয়। তবে ১৪০ থেকে ১৫০ রান করতে পারলে জয় পাওয়া সম্ভব। অর্থাৎ খেলা মাত্র ১০ ওভারের হলেও প্রথমে ব্যাট করে জয় পেতে হলে প্রায় টি টোয়েন্টি ম্যাচের সমান রান করতে হবে।

টি টেন ক্রিকেট কি সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়বে?

টি টেন ক্রিকেট এসেছে আরব আমিরাতে চালু হওয়া এই লিগের চেয়ারম্যান সাজিউল মুলকের মাথা থেকে। তার লক্ষ্য, টি টেন ক্রিকেট শুধুমাত্র লিগ পর্যায়ে না রেখে আন্তর্জাতিক পর্যায়েও চালু করা। তিনি চান, টি টেন ফরম্যাটের মাধ্যমে ক্রিকেটকে ইউরোপ ও আমেরিকায় ছড়িয়ে পড়ুক। তার প্রত্যাশা, ক্রিকেটের নতুন এই সংস্করণ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়বে, নতুন নতুন বাজার সৃষ্টি করবে।

শহীদ আফ্রিদি; Image Source: crictracker.com

পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেট তারকা শহীদ আফ্রিদি আশা করছেন, অলিম্পিকেও টি টেন ক্রিকেট সংযোজিত হবে। আর একবার যদি ক্রিকেট অলিম্পিকে যুক্ত হতে পারে, তাহলে বিশ্বের অধিকাংশ দেশই ক্রিকেটের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠবে। তাই বলা যায়, টি টেন ক্রিকেট বিশ্বজুড়ে খুব দ্রুতই ছড়িয়ে পড়তে পারে।

 

Featured Image: insidesports.com