ক্রিকেট ঐতিহ্যর ধারক ও বাহক হলো টেস্ট।  দীর্ঘ ৫ দিন ব্যাপি এই খেলায় প্রত্যেক ব্যাটসম্যান ও বোলারকে দিতে হয় ধৈর্য্যর পরিক্ষা। কেউ তাতে সফল হয় কেউ বা হয় ব্যর্থ। ৫ দিনের এই খেলা হয়ে থাকে সর্বোচ্চ ৪ ইনিংসে। কোন দল ২ ইনিংস খেলেই কাটিয়ে দেয় ৫ দিন। কেউ বা ৩ ইনিংসেই পেয়ে যায় ম্যাচের ফলাফল, কেউ ৪ ইনিংসের পর জয় পরাজয় কিংবা ড্র এর মাধ্যমে ফলাফল পায়।

Image Source: espncricinfo

শেষ ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে দলকে পরাজয়ের হাত থাকে রক্ষা করতে কিংবা জয় উপহার দিতে ব্যাট ও বল হাতে আপ্রাণ চেষ্টা করে যায় খেলোয়াড় রা। সেখানে কেউ জয় লাভ করে কিংবা ম্যাচ ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়ে। আজ আলোচনা করা হলো টেস্ট ইতিহাসে চতুর্থ ইনিংসে সফল এমন ৫ জন ব্যাটসম্যান সম্পর্কে-

৫. রাহুল দ্রাবিড় (ভারত)

১৯৯৬ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ভারত ক্রিকেট দলের হয়ে টেস্ট খেলেছেন রাহুল দ্রাবিড়। ১৬ বছরের ক্রিকেট ক্যারিয়ারে নিজেকে ভারত দলের অন্যতম ভরষামান ক্রিকেটার হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন সাবেক এই অধিনায়ক। ব্যাট হাতে অনবদ্য ইনিংস সব ইনিংস খেলায় ‘দ্য ওয়াল’ নামে বেশ পরিচিতি লাভ করেন৷

Image Source: cnn

১৬ বছরের টেস্ট ক্যারিয়ারে দ্রাবিড় ১৬৪টি ম্যাচ খেলেন তিনি। এতে ২৮৬ ইনিংস ব্যাট করে ৫২.৩ গড়ে  ১৩,২৮৮ রান করেন। দ্রাবিড় তার টেস্ট  ক্যারিয়ারে ৫৬ বার চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করার সুযোগ পান। সেখানে ব্যাট হাতে ৪০.৮৪ গড়ে রান তুলেছেন। এক শতক আর নয় অর্ধশতকে করেছেন ১৫৫২ রান।

Image Source: cnn

চতুর্থ ইনিংসে দ্রাবিড়ের ব্যাট থেকে আসা একমাত্র  শতকটি হাঁকান ১৯৯৮ সালে হ্যামিলটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে এবং ম্যাচটি ড্র হয়। অ্যাডিলেইডে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চতুর্থ ইনিংসে ৭২ সালে অপরাজিত ছিলেন এবং সে ম্যাচের প্রথম ইনিংসে করেছিলেন ২৩৩ রান।

৪. শিবনারায়ণ চন্দরপল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)

১৯৯৪ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে টেস্ট খেলেন শিবনারায়ণ চন্দরপল।  ক্যারিয়ানদের মধ্যে টেস্টে তিনি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রহক। ২১ বছরের টেস্ট ক্যারিয়ারে চন্দরপল উইন্ডিজদের হয়ে অধিনায়কত্বও পালন করেন৷ বামহাতি এই ব্যাটসম্যান তার টেস্ট ক্যারিয়ারে ১৬৪টি ম্যাচ খেলেন।

Image Source: espncricinfo

আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্যারিয়ারে চন্দরপল ২৮০টি ইনিংসে ব্যাট করেন। যাতে ৫১.৩৭ গড়ে ১১,৮৬৭ রান করেন। ৩০টি শতক ও ৬৬টি অর্ধশতম পূর্ণ করেন। ২৮০টি ইনিংসের মধ্যে ৪৯ বার চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করার সুযোগ পান তিনি। এতে ১৫৮০ রান করেন। যাতে গড় ছিল ৪১.৫৮। চতুর্থ ইনিংসে তিনি ২টি শতক ও ১১টি অর্ধ শতক পূর্ণ করেন।

Image Source: espncricinfo

শতকগুলোর মধ্যে একটি পূর্ণ করেন ২০০৭ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওল্ড ট্রাফোডে। ম্যাচটিতে তার দল ৬০ রানে পরাজিত হলেও ১১৬ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি।

৩. অ্যালাস্টেয়ার কুক (ইংল্যান্ড)

২০০৬ সালে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু এবং ২০১৮ সালে সেই ভারতের বিপক্ষেই ম্যাচ দিয়ে ক্যারিয়ারের ইতি টানেন ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক অ্যালাস্টেয়ার কুক। ১২ বছরের টেস্ট ক্যারিয়ারের নিজেকে নিয়ে গেছেন অনন্য এক মাত্রায়। ইংলিশদের মধ্যে টেস্ট সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকদের তালিকার শীর্ষ স্থান তারই দখলে। তারই সম্মাননায় ‘নাইটহুড’ উপাধিতে ভূষিত করা হয় তাকে। নামের পাশে যোগ হয় ‘স্যার’ শব্দটি।

Image Source: espncricinfo

১২ বছরের ক্যারিয়ারে কুক ১৬১টি টেস্ট ম্যাচ খেলেন। তার মধ্যে ২৯১ ইনিংস ব্যাট করে ৪৩.৩৫ গড়ে করেছেন ১২,৪৭২ রান। হাঁকিয়েছেন ৩৩টি শতক ও ৫৭টি অর্ধশতক। ২৯১ ইনিংসের মধ্যে ৫৩ বার চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করেন তিনি। তাতে ৩৫.৮০ গড়ে ১৬১১ রান সংগ্রহ করেন তিনি। ২টি শতক ও ৯টি অর্ধশতকও পূর্ণ করেন।

Image Source: espncricinfo

তার দুইটি শতকের একটি করেন ২০০৭ সালে শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। ম্যাচটিতে তিনি ১১৬ রান করলেও তার দল ২০৬ রানের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত হয়। দ্বিতীয় শতকটির দেখা পান  বাংলাদেশের বিপক্ষে। ম্যাটিতে ১০৯ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি এবং ইংলিশরা ৯ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে জয় লাভ করে।

২. গ্রেইম স্মিথ (দক্ষিণ আফ্রিকা)

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২০০২ সালে টেস্টে অভিষিক্ত হয় এবং ২০১৪ সালে সে অজিদের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়েই টেস্ট ক্যারিয়ারের ইতি টানেন প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান গ্রেইম স্মিথ। ১২ বছরের টেস্ট ক্যারিয়ারে ১১৭ টি ম্যাচ খেলেন এবং তার মধ্যে ২০৫টি ইনিংসে ব্যাট করেন। যাতে ৪৮.২৬ গড়ে ৯২৬৫ রান করেন। শতক পূর্ণ করেন ২৭টি ও অর্ধশতক পূর্ণ করেন ৩৮টি।

Image Source: espncricinfo

২০৫টি ইনিংসের মধ্যে স্মিথ ৪১ বার চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করার সুযোগ পান। এতে ৫১.৯৭ গড়ে ১৬১১ রান সংগ্রহ করেন। এতে ৪টি ও ৯টি অর্ধ শতকের দেখা পান। চতুর্থ ইনিংসে করা ৪টি শতকের মধ্যে একটি করেন কিউইদের বিপক্ষে জয়ের জন্য ২৩৪ রানের লক্ষ্যে। ম্যাচটিতে ১২৫ রানে অপরাজিত থাকেন স্মিথ এবং তার দল ৬ উইকেটে জয় লাভ করে।

Image Source: espncricinfo

বাকি শতক গুলোর মধ্যে ১০৮ ও ১০১ রান করেন  অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এবং এজবাস্টনে ১৫৪ রানে অপরাজিত ছিলেন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। এই তালিকায় তিনি এক মাত্র ব্যাটসম্যান যার চতুর্থ ইনিংসে ব্যাটিং গড় ৫০ এর উপরে রয়েছে।

১. শচীন টেন্ডুলকার (ভারত)

ক্যারিয়ারের প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত একের পর এক রেকর্ড করে গেছেন ভারতীয় ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার। তিনি ক্রিকেট ইতিহাসের এক মাত্র ব্যাটসম্যান যার নামের পাশে শততম শতক পূর্ণ করার রেকর্ড রয়েছে, টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসের সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী ছাড়াও রয়েছে অনেক রেকর্ড। চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করা খেলোয়াড়দের মধ্যেও তিনি সবচেয়ে সফল।

Image Source: espncricinfo

১৯৮৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ভারতের হয় টেস্ট খেলেন কিংবদন্তি এই ক্রিকেটার। এর মধ্যে ২০০তম টেস্ট খেলার মাইল ফলক স্পর্শ করেন। ২০০ টেস্টে ৩৩৯টি ইনিংসে ব্যাট করে ৫৩.৭৯ গড়ে ১৫,৯২১ রান সংগ্রহ করেন। এতে তার শতক ছিল ৫১টি ও অর্ধশতক ৬৮টি।

Image Source: espncricinfo

৩৩৯টি ইনিংসের মধ্যে টেন্ডুলকার চতুর্থ ইনিংসে ব্যাট করেন ৬০ বার। এতে ৩৬.৯৩ গড়ে ৩ শতক ও ৭ অর্ধশতকে ১৬২৫ রান সংগ্রহ করেন। মাত্র ১৭ বছর বয়সের ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যানচেস্টারে চতুর্থ ইনিংসে ১১৭ রানের অপরাজিত একটি ইনিংস খেলেন। লিটল মাস্টার খ্যাত এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান ১৯৯৮ সালে চেন্নাইতে পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৩৬ রানের একটি ইনিংস খেলেন।

Image Source: espncricinfo

তার ক্যারিয়ারের ১৯ বছর পর তার ব্যাট থেকে আসা কোন শতকের পর টেস্ট ম্যাচ জয়ের স্বাদ গ্রহন করে ভারতীয়রা। সে ম্যাচে চতুর্থ ইনিংসে চেন্নাইতে ইংল্যান্ডের দেওয়া ৩৮৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামে স্বাগতিকরা। টেন্ডুলকারের ১০৩ রানের অপরাজিত ইনিংসের উপর ভর করে জয় তুলে নেয় তারা।

Featured Image: espncricinfo